মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ০৮:৪৮:২৩ পিএম

কৃষিতে কীটনাশক ব্যবহারঃ সংকটে মানবস্বাস্থ্য ও জীববৈচিত্র

ফজলে রাব্বী | জেলার খবর | নাটোর | শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | ১১:৩৫:৫৭ এএম

অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহারের কারণে অত্যন্ত উপকারী ব্যাঙ ও সাপের মত উপকারী পতঙ্গভোজী প্রাণী ও সরীসৃপ আজ প্রায় বিলুপ্তির পথে৷
এর অধিক ব্যবহার কেবল ফসলের শত্রু পোকাই ধ্বংস করে না,অনেক উপকারী পোকা ধ্বংস করে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করছে৷ সরেজমিনে পরিদর্শনে কৃষি জমির জীববৈচিত্রের যে চিত্র উঠে আসে- এক কথায় তা ভয়াবহ৷ কৃষি জমি বিশেষকরে ধানের জমিতে একসময় শামুক-ঝিনুক ও বিভিন্ন প্রকার ছোট মাছ দেখা যেত।
এখন এগুলো একেবারেই অনুপস্থিত৷ প্রকৃতির লাঙ্গল বলা হয় যে কেঁচোকে তাও এখন আর কৃষি জমিতে পাওয়া যায়না৷ ফসলের জমিতে পোকামাকড় খাওয়ার জন্য পাখ-পাখালির বিচরণ এখন কমে গেছে আশংকাজনকভাবে ৷ ফসলের মাঠে ফুল থেকে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত ভ্রমর আর মৌমাছির গুঞ্জনও কমে গেছে নানা রকম বিষাক্ততায়৷ এছাড়াও কৃষি পরিবেশে বিদ্যমান নানা রকম সরীসৃপ আজ বিলুপ্তপ্রায়।
সাম্প্রতিক সময়ে ফসলের জমিতে আগাছানাশকের ব্যাপক ব্যবহার বিভিন্ন উদ্ভিদ প্রজাতিকেও হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে৷ অন্যদিকে, অব্যাহতভাবে অতিরিক্ত জমিতে ব্যবহৃত অতিরিক্ত কীটনাশক বন্যা-বৃষ্টির পানি বাহিত হয়ে নদী-নালা ও পুকুরে ছড়িয়ে পড়ে মাছের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও প্রজনন ক্ষমতা কমিয়ে দিচ্ছে এবং ক্ষতরোগ সৃষ্টি করছে৷ বিষাক্ত কীটনাশক একইভাবে মাটি ও ভূগর্ভস্থ পানিকে দূষিত করে জনস্বাস্থ্যকে বিপজ্জনক করে তুলছে৷ 
কীটনাশকের প্রতিক্রিয়ায় মানুষের বমি বমি ভাব,শারীরিক দুর্বলতার পাশাপাশি শ্বাসকষ্ট, ফুসফুসের রোগ, মাথা ব্যথা, ডায়রিয়া প্রভৃতি অসুবিধা দেখা দেয়৷ ছবিগুলো গতকাল নাটোরের নলডাঙ্গা থেকে তোলা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন