সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯ ০৪:৫৩:১৫ এএম

উদ্বেক উৎকন্ঠায় শেষ হলো শেরপুর আ.লীগের দু'গ্রুপের পাল্টা কর্মসূচি

জাহিদুল খান সৌরভ | জেলার খবর | শেরপুর | মঙ্গলবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৭ | ১০:৩৫:৩৮ এএম

জেলা পরিষদ সদস্য ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাকারিয়া বিষুর উপর হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল ৩০ অক্টোবর সোমবার আওয়ামী লীগের পৃথক দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি প্রতিবাদ কর্মর্সুচি কোন প্রকার সংঘর্ষ বা কোন প্রকার অপ্রতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে।

এর আগে গত রবিবার বাদী এবং বিবাদী পক্ষ অর্থাৎ পৌর শহরের দুই এলাকা নবীনগর ও মীরগঞ্জের নামে শহর ব্যাপী মাইকিং করে প্রতিবাদ কর্মর্সুচিতে উপস্থিত হওয়ার জন্য লোকজনকে অনুরোধ করে।

এ বিষয়ে গত রবিবার রাত থেকেই শহরবাসী থাকে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা ও উত্তেজনায়। সবশেষে সোমবার পুরো শহর জুড়ে এক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হলেও প্রশাসন,পুলিশ এবং র্যাবের সহযোগীতায় জেলা আওয়ামী লীগের পৃথক দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি প্রতিবাদ কর্মর্সুচি অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে । জন সাধারনের নিরাপত্তার পাশাপাশি দু'গ্রুপের সংঘর্ষ এড়াতে সদর থানা পুলিশ সোমবার সকাল থেকে জেলা শহরের প্রধান সড়ক থানা মোড় ও কলেজ মোড়ে বাঁশ বেঁধে ব্যারিকেড দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে রাখেন। এতে শহরের অভ্যন্তরে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়নের পাশাপাশি অতিরিক্ত নিরাপত্তার জন্য শহরে র্যাবের টহলও লক্ষ্য করা যায়। এদিকে জেলা পরিষদ সদস্য জাকারিয়া বিষুর নিজ এলাকা থেকে গতকাল বেলা ১২ টায় বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে রঘুনাথ বাজার থানা মোড়ে সমাবেশ করেন।

সমাবেশে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও তার পরিবারের লোকজনের বিচারের দাবীতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের একপক্ষ বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক, বিএমএ সভাপতি ডা. এমএ বারেক তোতা, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হাসান উৎপল, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাজী দুলাল মিয়া, জেলা পরিষদের সদস্য জাকারিয়া বিশু, জেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর মো. নজরুল ইসলাম প্রমূখ।

অপরদিকে, মিরগঞ্জ এলাকাবাসীর প্রতিবাদ মিছিলটি একই সময়ে বাগরাকসা এলাকার নতুন বাসটার্মিনাল থেকে বের হয়। তারা তিনানী বাজার কলেজ মোড় হয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন। স্মারকলিপি প্রদান কালে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা এবং জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সাব্বির আহম্মেদ খোকন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বায়োজিদ হাসান, যুবলীগ নেতা মতিন, কৃষকলীগ নেতা খলিলএবং জেলা যুবলীগের সভাপতি ও কামারেরচর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমূখ।

স্মারকলিপি প্রদান শেষে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির রুমান এবং আওয়ামীলীগ নেতা ও সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ছানুয়ার হোসেন ছানু’র বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও অপপ্রচারের প্রতিবাদ জানিয়ে। ষড়যন্ত্রকারীদের বিচার দাবী করে শহরের কলেজ মোড়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন জেলা আওয়ামী লীগের অন্যপক্ষ ।

এদিকে দুইপক্ষের মিছিল-সমাবেশ চলাকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল কয়েক ঘন্টার জন্য পুরোপুরি বন্ধেরর পাশাপাশি আতংকে অনেক দোকানপাটও বন্ধ করতে দেখা যায়।

পরবর্তীতে সদর থানা পুলিশ, জেলা প্রশাসক এবং র্যাবের উর্ধতন কর্মকর্তার অনুরোধে দুপুর ৩টার পরে উভয়পক্ষের কর্মসূচি সমাপ্ত ঘোষনা করার পর পুলিশ সড়কের ব্যারিকেড তুলে নিলে শহরের দোকান পাট খোলা, যান চলাচল স্বাভাবিক সহ জনমনে স্বস্তি ফিরে আসে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন