রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১২:০৪:১০ পিএম

নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইলিশ শিকার: কঠোর অবস্থানে মৎস্য বিভাগ

জেলার খবর | বরিশাল | বৃহস্পতিবার, ৫ অক্টোবর ২০১৭ | ০৪:৫৫:৩৩ পিএম

নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইলিশ শিকারে থেমে নেই অসাধু জেলেরা। আড়ালে- আবডালে ঠিকই চালিয়ে যাচ্ছে ইলিশ নিধন। মা ইলিশের পাশাপাশি জালে ধরা পড়ছে জাটকা। এর পরিপ্রেক্ষিতে, প্রজনন মাসে ইলিশ নিধন বন্ধে কঠোর অবস্থানে তৎপর রয়েছে মৎস্য অধিদপ্তর। সেই সাথে নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ড।

বিভাগীয় মৎস্য অফিস সূত্র জানিয়েছে, কিছু অসাধু জেলে সরকারের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও গোপনে ইলিশ শিকার করছে। তবে এদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। প্রতিদিনই পরিচালিত হচ্ছে অভিযান। আটক করা হচ্ছে জাল। জেল- জরিমানা করা হচ্ছে অভিযুক্ত জেলেদের।

বিভাগীয় মৎস্য অফিসের সহকারী পরিচালক আজিজুর রহমান জানান,২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নদীতে মা ইলিশ শিকারের দায়ে গত ৫ দিনে বরিশাল বিভাগের ৬ জেলায় ৬৬ জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়ে হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। পাশাপাশি এ পর্যন্ত জরিমানা আদায় করা হয়েছে ১ লাখ ৯৯ হাজার টাকা । জব্দ করা হয়েছে ১ হাজার ৬০৪ কেজি ইলিশ ও ৮ লাখ ৫৫৮ মিটার অবৈধ জাল।

তিনি জানান, গত ১-৫ অক্টোবর পর্যন্ত বরিশাল বিভাগে মোট ৩৫৩ টি অভিযান ও ১৬৩ টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। যার অনুকূলে ৬২ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া এ পর্যন্ত চারটি নৌকা ও একটি ট্রলার জব্দ করা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন জেলে জানান, বরিশাল জেলায় ৭৪ হাজার জেলের মধ্যে ৪৪ হাজারকে ২০ কেজি করে চাল দেয়া হয়। যা দেয়া হয় তাও পর্যাপ্ত নয়। বাকি জেলেরা কি করবে? বাধ্য হয়ে তারা অসাদুপায় অবলম্বন করে।

এদিকে, বরিশালে মোকামগুলোতে ইলিশ শ্রমিক রয়েছে প্রায় ৪ হাজার। ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞার পর থেকে তারা দুর্দিন পার করছে। পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন অতিবাহিত করতে হচ্ছে ধার দেনা করে।

জেলেরা আরও জানায়, এই সময়ে সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয় আমাদের। কারণ আমরা সরকারের কাছ থেকে সাহায্য পাই না এবং আড়তদারদের কাছ থেকেও কোন সহযোগিতা পাই না। দেনাগ্রস্থ হয়ে পড়ি। মানবেতর জীবন কাটাই স্ত্রী, সন্তানদের নিয়ে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন