সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ ০৩:১৭:১০ পিএম

ক্রেনে করে হাসপাতালে নেয়া হলো বিশ্বের সবচেয়ে মোটা নারীকে (দেখুন ভিডিও)

ভিন্ন খবর | রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ | ১০:৪০:৪৩ এএম

প্রায় ৫০০ কেজি ওজনের ইমান এই মুহূর্তে বিশ্বের সব থেকে ভারী মহিলা। অতিরিক্ত ওজনের কারণে ২৫ বছর ধরে গৃহবন্দি ছিলেন মিশরের বাসিন্দা ইমান আহমেদ আবদুলাতি। অবশেষে ওজন কমাতে বিশেষ ব্যবস্থায় শনিবার ভোরে মিশরের আলেকজান্দ্রিয়া শহর থেকে বিশেষ বিমানে ভারতের মুম্বাইয়ে পৌঁছালেন ছত্রিশ বছর বয়সী ইমান আহমেদ।

এরপর মহারাজ ছত্রপতি বিমানবন্দর থেকে ট্রাকে স্পেশাল বেডে শুয়ে তাকে হাসপাতালের গেটে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ক্রেনে করে স্পেশাল ওয়ার্ডে নেওয়া হয়।

গত অক্টোবরে ভারতের বেরিয়াট্রিক সার্জন মোফাজ্জল লাকদাওয়ালার সঙ্গে যোগাযোগ করেন ইমনের পরিবার। এরপর বিভিন্ন পরীক্ষা নীরিক্ষার পর তাকে চিকিৎসা করাতে রাজি হন চিকিৎসক মুফাজ্জল।



স্পেশাল বিমান ট্রাক, ও ক্রেনের সাহায্যে হাসপাতালে ৫০০ কেজির ইমান কিন্তু বেশি ওজনের ওই নারীকে ভারতে স্থানান্তর করা অসুবিধাজনক হওয়ার কারণে এর আগে মিশরের ভারতীয় দূতাবাস তাকে ভিসা দেয়নি।

হাঁটা, চলার ক্ষমতা নেই। ওজন কমাতে চেষ্টার কসুর ছিল না। কিন্তু পাঁচশো কেজি ওজন কমা তো মুখের কথা নয়। তবু হাল ছাড়েননি। অতিরিক্ত ওজনের জন্য বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা দেখা দিয়েছে ইমানের।

সেসবের চিকিৎসা করাতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি। পরে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের হস্তক্ষেপে ভিসা পান আব্দুলাতি।

সে আবেদনে সারা দিয়ে ভারতে চিকিৎসার অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর ২০ লাখ টাকা দিয়ে ভাড়া করা বিশেষ বিমানে মিশর থেকে মুম্বাইয়ে যান ইমান। এখন মুম্বাইয়ের সাইফি হাসপাতালে শুরু হয়েছে ওয়েট লস ট্রিটমেন্ট। আপাতত সেখানেই ৩ মাস ধরে চলবে তার চিকিৎসা।

অতিরিক্ত ওজনের কারণে স্কুলের গন্ডিই পেরুতে পারেননি আব্দুলাতি। ১১ বছর বয়সেই তার ওজন এত বেড়ে যায় যে তিনি দাঁড়াতেও পারতেন না। তার পরিবার জানায়, গত ২৫ বছর ধরে আব্দুলাতি শয্যাশায়ী। এ দীর্ঘ সময়ে তিনি ঘরের বাইরেও যাননি।

তিনি নড়াচড়া করা বা পাশ ফিরে শুতেও পারেন না। প্রাত্যহিক কাজকর্মের জন্য তিনি তার মা ও বোনের ওপর নির্ভরশীল।
আব্দুলাতি এক ধরনের প্যারাসাইট সংক্রমণের শিকার বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তার পরিবার অনেক চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলেও কেউ তার চিকিৎসা করতে রাজি হয়নি।

সার্জন ডা.মোফাজ্জল লাকদাওয়ালা জানান, আব্দুলাতির বোন তার সঙ্গে গত অক্টোবর মাসে যোগাযোগ করেছে। এরপরই তিনি আব্দুলাতিকে সহায়তা করতে তার ভিসার ব্যবস্থা করা এবং অর্থ সংগ্রহের কাজও করেছেন।

ভারতে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, একমাস পর্যবেক্ষণে রাখার পর অস্ত্রপোচার হবে ইমানের।

তবে তাতে কী ওজন কমবে? চিকিৎসকরা বলছেন, সার্জারির পর কয়েকমাস ভারতেই থাকতে হবে। তবে একশো কেজির নীচে ওজন কমিয়ে আনতে দুই থেকে তিন বছর সময় লাগবে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন