মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারী ২০২০ ১১:০১:৫৩ এএম

ফুলবাড়ীর ফুলের ফেরিওয়ালা রফিকুল

সৌরভ কুমার ঘোষ | জেলার খবর | কুড়িগ্রাম | শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ | ০৫:১৫:৩৩ পিএম

ফুলকে ভালোবেসে ফুলের ফেরিওয়ালা হয়েছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা সদর ইউনিয়নের চন্দ্রখানা বজরের খামার গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৩৮)।

শীতকাল এলেই তিনি ভ্যান গাড়িতে করে বিভিন্ন জাতের ফুলের চারা নিয়ে বেড়িয়ে পড়েন ফুলবাড়ী উপজেলার ফুল প্রেমিদের দ্বারে দ্বারে। ফুল চারা নিয়ে শহরের অলিগলি ও গ্রামের নিভৃত এলাকাতেও তিনি ছুটে বেড়ান।

গোলাপ, গাঁদা, ডালিয়া, কচমচ, নয়নতারা, বকুল, রঙ্গন, স্টারসহ প্রায় ৫০/৬০ প্রকার ফুলের চারা তার কাছে পাওয়া যায়। রফিকুর ইসলাম জানান, তিনি আগে রিকশার প্যাডেল ঘুরিয়ে উপার্জন করতেন।

কিন্তু এতে তার ৭ সদস্যের ভোরণ পোষন হতো না। কষ্টে দিনাতিপাত করতে হতো তাকে। ভাবলেন, ফুলবাড়ীতে আর কি করা যায়।

সেই ভাবনা থেকে তিনি ফুলের চারা বিক্রি করার মনস্থ করেন। নাম ফুলবাড়ী হলেও এখানে তেমন ফুলের বাগান নেই। ফুলের বাগান যাতে বাড়ি বাড়ি হয় এই মুক্ত চিন্তা থেকেও রফিকুল ফেরি করে ফুলের চারা বিক্রি শুরু করেন। এর সাথে ফুলের উপর গভীর ভালোবাসাটি তাকে ফুলের ফেরিওয়ালা করেছে এমন কথা জানান তিনি।

সামান্য পুঁজি নিয়ে নার্সারি থেকে পাইকারি দরে ফুলের চারা কিনে একটি ফুল চারা বিক্রি করে রফিকুল ৫ টাকা থেকে ২০/২৫ টাকা পর্যন্ত আয় করেন।

এতে ফুলচারা বিক্রিতে তার দৈনিক আয় হচ্ছে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা। ফুলের চারা বিক্রি করে পরিবারে স্ত্রী, সন্তান মিলে ৭ সদস্য নিয়ে তিনি অনেকটা সুখেই আছেন।

রফিকুল ইসলামের দাবি তাকে ফুলের চারা বিক্রিতে কেউ আর্থিক সহযোগিতা করলে তিনি ফুলবাড়ীতে একটি ফুলের নার্সারি গড়ে তুলে সেখান থেকে নিজে সাবলম্বী হতেন। এর সাথে এখানকার বাড়ি বাড়ি ফুলবাগান গড়ার অনুপ্রেরণা যোগাতেন। এতে ফুলবাড়ী ভরে যেত ফুলে ফুলে।


খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন