সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯ ০৪:৩২:২০ পিএম

রান নিয়ে বিরোধ, শেরপুর কলেজের শিক্ষকসহ আহত ১৯

জাহিদুল খান সৌরভ, স্টাফ করেসপন্ডেট | জেলার খবর | শেরপুর | সোমবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৬ | ০৬:৪১:০৯ পিএম

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড আয়োজিত ক্রিকেট খেলায় শেরপুর সরকারি কলেজ কলেজ একাদশের খেলোয়াড় ও শরীরচর্চা শিক্ষকসহ ১৯ জনকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে টূর্ণামেন্টের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক টাঙ্গাইলের কাগমারী এম এম আলী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। 

গত ৪ ডিসেম্বর রবিবার বিকেলে টাঙ্গাইলের কাগমারী এম এম আলী সরকারি কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট টূর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা শেষে ওই অনাকাঙ্কিত ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় মেহেদী হাসান রুমান (১৭) ও জাকির হোসেন (১৭) নামে ২ শিক্ষার্থীকে কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া শরীরচর্চা শিক্ষক মঞ্জুরুল হক (৪০), শিক্ষার্থী মারুফ রহমান শাকিল (১৭), ফাহিম ফয়সাল প্রান্ত (১৭), আব্দুল্লাহ আল হাসান (১৬), নাজমুল হাসান (১৬)সহ বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও তাদের আশংকামুক্ত নয়। শরীরের বিভিন্ন স্থানে  ক্ষত ও ভাঙ্গা হাড় জোড়া হতে বেশ সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। 

এর প্রতিবাদে সোমবার দুপুরে শেরপুর সরকারি কলেজে আহত শরীরচর্চা শিক্ষক ও খেলোয়াড়দের গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে হাজির  করা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. একেএম রিয়াজুল হাসান বিষয়টি ন্যাক্কারজনক উল্লেখ করে দোষীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। 

শেরপুর সরকারী কলেজের ছাত্র অনিক ইউরো বিডিকে জানায়, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড আয়োজিত ক্রিকেট টূর্ণামেন্টে রবিবার বিকেলে শেরপুর সরকারি কলেজ ও টাঙ্গাইলের কাগমারীস্থ এম এম আলী সরকারি কলেজের মধ্যে ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। 

খেলায় এমএম সরকারি কলেজ প্রথমে ব্যাট করে ১১২ রান সংগ্রহ করলে শেরপুর সরকারি কলেজও নির্ধারিত ওভারে ১১২ রান তুলে। এতে খেলাটি টাই হয়। ওই অবস্থায় শেরপুর সরকারি কলেজের ক্রীড়া শিক্ষক মঞ্জুরুল হক ফাইনাল খেলার নিয়ম অনুযায়ী খেলার পরিচালনা কমিটির কাছে সুপার ওভারের দাবি জানান।

কিন্তু খেলা পরিচালনা কমিটি তা না মেনে প্রথম ১০ ওভারের রান রেটের হিসেবে এমএম সরকারি কলেজকে বিজয়ী ঘোষণা করে, কিন্তু শেরপুর সরকারি কলেজের  খেলোয়াড়রা এতে জোড় আপত্তি জানালে টাঙ্গাইলের কাগমারী এম এম আলী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা সবাই একত্রে শেরপুর সরকারি কলেজ একাদশের উপর লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে ৭ জন গুরুতর আহত হয়। 

তাদেরকে প্রথমে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি হওয়ায় ২ জনকে কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এই হামলার প্রতিবাদে সরকারি কলেজের ছাত্র/ ছাত্রীরা আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় এক প্রতিবাদ মিছিল ও মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন