সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯ ০৪:১১:৫৩ পিএম

শেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৬৬ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

জাহিদুল খান সৌরভ, স্টাফ করেসপন্ডেট | জেলার খবর | শেরপুর | শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৬ | ১০:৫৭:২৭ এএম

শেরপুরে জেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪ জনসহ মোট ৬৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করছেন। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে ১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন কুমার পাল ও জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো: ইলিয়াছ উদ্দিন এবং বুধবার চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মো: মাছুদ ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র হুমায়ুন কবীর রুমান মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এছাড়া সাধারণ ওয়ার্ডের ১৫টি সদস্য আসনে ৪৮ জন এবং ৫টি সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। 

চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীরা উৎসবমুখর পরিবেশে কর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে রিটার্নিং অফিসার জেলা প্রশাসক ডা. এ এম পারভেজ রহিম ও সহকারি রিটার্নিং অফিসার জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমানের কাছে স্ব-স্ব মনোনয়নপত্র জমা দেন। 

এদিকে জাতীয় পার্টি জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেবে না এমন ঘোষণার পরও শেরপুরে জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইলিয়াস উদ্দিন মনোনয়নপত্র দাখিল করায় নানা গুঞ্জন উঠেছে। 

একাধিক সূত্রমতে, দলের চাপে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হুমায়ুন কবীর রুমান শেষবধি পৌর নির্বাচনের মতো প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিলে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নিলেও ইলিয়াস উদ্দিন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। আর হুমায়ুন কবীর রুমান শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে রয়ে গেলে সেক্ষেত্রে সরে দাঁড়াতে পারেন ইলিয়াস উদ্দিন। 

এছাড়া চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মো: মাসুদ কৌশলগত কারণে মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও হয়তো তিনি প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেবেন এমন কথায় শোনা যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে। আর তা হলে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এডভোকেট চন্দন কুমার পালকে অবশ্যই লড়াই করতে হবে।

উল্লেখ্য, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩ ও ৪ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই অনুষ্ঠিত হবে। 

১১ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১২ ডিসেম্বর নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ ও ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ জেলা পরিষদ নির্বাচনে শেরপুর জেলার ৫ উপজেলার ৫২ ইউনিয়ন ও ৪ পৌরসভার ৭৪৩ জন জনপ্রতিনিধি ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন