মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯ ১১:৩৫:০৬ এএম

বিলুপ্তীর দ্বারপ্রান্তে বাংলার ঐতিহ্যবাহী বাহন ‘পালকি’

সৌরভ আদিত্য | খোলা কলাম | রবিবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৬ | ০৪:১৪:৩২ পিএম

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে সেই ঐতিহ্যবাহী পালকি। পালকি ছিল এক সময়ের গ্রাম - বাংলার ঐতিহ্য। বর- কনের বাহন। এটা ছাড়া বিয়ের কথা ভাবাই যেত না। এখন আর খুব একটা পালকি চোখে পড়ে না।
অনেকের কাছে এখন শুধুই স্মৃতি। বর -কনে বহনে পাল্টেছে যান। পালকির পরিবর্তে এসেছে নানা বাহন। পালকির পরিবর্তে ব্যবহার হচ্ছে প্রাইভেটকার , মাইক্রো কিংবা ঘোড়ার গাড়িসহ নানা যানবাহন। বর্ণিল সাজে সাজিয়ে সেই বাহনকে করা হয় আরও আকর্ষণীয়, বাড়ানো হয় সৌন্দর্য।

এক সময়ে গ্রামবাংলার হাটবাজারে পালকি সাজিয়ে রাখা হতো। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার আগেই পালকিওয়ালাদের কাছে ছুটে যেত বরের আত্মীয় - স্বজনরা। পালকি কাঠ দিয়ে তৈরি করা হতো। চার জনে মিলে পালকি বহন করত। সামনে পেছনে দু ’ জন করে পালকি কাঁধে নিত।

প্রথমে বরকে পালকিতে করে তার নিজ বাড়ি থেকে কনের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হতো। বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পর বর- কনেকে একসঙ্গে আবার বরের বাড়িতে নিয়ে আসত। পথে পালকিওয়ালাদের গানের সুরে সুরে মুগ্ধ হতেন আশপাশের মানুষ। পালকিওয়ালাদের সেই বিখ্যাত গান আর নাচ দেখার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ত শিশু -কিশোর - কিশোরীসহ নানা বয়সী মানুষ। এভাবেই পালকি দিয়ে বর -কনে বাহনের দৃশ্য ছিল গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য।

পালকি না থাকলেও আছে প্রাইভেটকার, মাইক্রো ও ঘোড়ার গাড়িসহ নানা মোটর যান। পালকি চলে, পালকি চলে, গগনতলে আগুন জ্বলে তাছাড়া আরো সুন্দর ছন্দবদ্ধ কথা তুমি যাচ্ছ পালকিতে মা চড়ে পালকি আমাদের দেশের জাতি, ধর্ম, বর্ণ সবার কাছে সমান পছন্দনীয় ছিলো। এটি আমাদের দেশের হাজার বছরের পুরনো ঐতিহ্য। 

পালকি নিয়ে লেখা হয়েছে গান, ছড়াসহ কতো শত কবিতা। ছন্দের জাদুকর সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত থেকে শুরু করে কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ অনেক কবি পালকি নিয়ে লিখেছেন।গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী পালকি আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির একটি অংশ। পালকি হয়তো একদিন বিলুপ্ত হয়ে যাবে। হয়তো বা পেশা বদলাবে পালকির বাহক বেয়ারাদের। আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির ইতিহাস থেকে পালকি হয়তো হারাবে না কোনোদিন। কারণ পালকিই তো প্রথম এবং ভ্রাম্যমাণ বাসর।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন