বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯ ১১:৪৮:১৫ এএম

সৈয়দপুরে স্বামীর জীবন বাঁচাতে গৃহবধুর আকুতি

জেলার খবর | নীলফামারী | মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর ২০১৬ | ০৫:১৩:৫৭ পিএম

আমরা তো মানুষ,আর আমি যেটুকু জানি মানুষই নাকি মানুষের জন্য।তাই একটু সহানুভুতি ও আন্তরিক সহযোগীতা মানুষ তো অপর আর এক মানুষের কাছে পেতেই পারেন।আর তাই জীবন সঙ্গী অসুস্থ্য স্বামীকে বাচাতে এক অসহায় গৃহবধু সমাজের বিত্তবান মানুষের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের মাঝা পাড়ার বাশিন্দা সুবোধ রায় (২৮) অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে বিছানায় শুয়ে ব্যথায় কাতরাচ্ছেন।

সে বিছানা থেকে মাথা তুলবার পর্যাপ্ত শক্তি ও সামর্থ্য নেই তার। . বছর ছয়েক আগে সুবোধ রায় ইটের ভাটায় কাজ করতেন। গ্রীস্মের তীব্র খরতাপ থেকে একটুখানি স্বস্তি পাওয়ার আশায় কোন এক দুপুরবেলা কাজের ফাকে তিনি একটি বড় মাটির স্তুপের পাশে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। কিন্তু হঠাৎ অনেকগুলো মাটির চাপা গায়ে পড়ে সুবোধ রায়কে ক্ষতবিক্ষত করে দেয়। মুহূর্তেই সুবোধ রায়ের পৃথিবীতে অন্ধকার নেমে আসে।পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাত মাসের চিকিৎসা শেষে তিনি কোনরকমে প্রাণে বেচে যান। 

কিন্তু ততোদিনে তিনি হারিয়েছেন তার কর্মক্ষম শক্তি।বর্তমানে তিনি বেশ কিছু  ক্ষত নিয়ে বিছানায় ব্যাথায় কাতরাচ্ছেন। চিকিৎসা খরচের জন্য জমিজমা যা ছিলো সব ইতিপুর্বে বিক্রি করে এখন তার পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে।এক সময়কার কর্মঠে সুবোধ রায়ের ছোট্ট সংসারে ছিলো সুখ সমৃদ্ধ ভরা। 

কিন্তু হঠাতই একটি দূর্ঘটনায় সুবোধ রায়ের পুরো পরিবারে নেমে আসে কালো অন্ধকার।এমন পরিস্থিতিতে স্ত্রী শিউলি রানী অন্যের বাড়িতে ঝি এর কাজ করে কোনো রকমে দুবেলা দু মুঠো খাবার জুটাতে হিমশিম খাচ্ছেন।তাদের কোল উজার করা একমাত্র ৬ বছরের শিশু কন্যাটি সবেমাত্র স্কুলে যেতে শুরু করেছে কিন্তু আর্থিক অভাব অনটনে তাও এখন বন্ধ হওয়ার উপক্রম।

তাই বলা যেতে পারে শিশুটিরও ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত!
এ দিকে দিনে-দিনে সুবোধ রায়ের শরীর অবনতির দিকে ধাবিত হলেও অর্থ অভাবে তার উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছেন না পরিবার। এমন অবস্থায় স্বামীর জীবন বাঁচাতে আকুতি জানিয়ে সমাজের বিত্তবানদের সাহায্যের সহযোগীতা কামনা করেছেন অসহায় গৃহবধু শিউলি রানী।কেউ যদি সাহায্যের বিষয়ে আন্তরিক হয়ে সহযোগীতা করতে চান তবে গৃহবধু শিউলীর (০১৭৭৩৯০৯৫২৯)নম্বরে সরাসরি কল করে তার স্বামীর রোগের বিস্তারিত জেনে সাহায্য করতে পারেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন